1. bd439364@gmail.com : BD FARIDPUR 24 : BD FARIDPUR 24
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৫১ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
***পরীক্ষামূলক সম্প্রচার***
প্রধান খবর
করোনায় কারণে যে সংকট সৃষ্টি হয়েছে, একসাথে মোকাবেলা করতে হবে -শেখ হাসিনা। BOBPL সভাপতি আলহাজ্ব শেখ মোঃ ফজলুল হক করোনা থেকে নিজে বাচুন অন্যকে বাচাতে এগিয়ে আসুন। রাসুলুল্লাহ সাঃ,র জীবনি নিয়ে সংক্ষিপ্ত কিছু প্রশ্ন উত্তর। পবিত্র আশুরা সংক্ষিপ্ত বিবরণ আলহাজ্ব শেখ মোঃ ফজলুল হক,। বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। ১৯২০-১৯৭৫-১৫ আগষ্ট পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু,র কৃতিত্ব। বঙ্গবন্ধুর জুলিও কুরি পুরস্কার বঙ্গবন্ধু ঘোষিত বাঙালীর মুক্তির সনদ-৬ দফা ভাষা আন্দোলন বঙ্গবন্ধু। ২১-ফেব্রুয়ারী ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ ভুমিকা। টুঙ্গিপাড়ার মুজিব কি ভাবে বঙ্গবন্ধু এবং জাতির পিতা হলেন জানুন- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পরিকল্পনায় শতভাগ বিদ্যুৎ।

আগষ্টের নির্মম ভয়ানক দৃশ্য।

  • Update Time : শনিবার, ১ আগস্ট, ২০২০
  • ৭৫ বার পড়া হয়েছে

১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের কালরাতে ঘাতকের হাতে নিহত হন বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গবন্ধুর স্ত্রী শেখ ফজিলাতুননেছা, পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, শেখ কামালের স্ত্রী সুলতানা কামাল, জামালের স্ত্রী রোজী জামাল, বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ নাসের, এসবি অফিসার সিদ্দিকুর রহমান, কর্ণেল জামিল, সেনা সদস্য সৈয়দ মাহবুবুল হক, প্রায় একই সময়ে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবলীগ নেতা শেখ ফজলুল হক মণির বাসায় হামলা চালিয়ে শেখ ফজলুল হক মণি, তাঁর অন্ত:সত্তা স্ত্রী আরজু মণি, বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াতের বাসায় হামলা করে সেরনিয়াবাত ও তার কন্যা বেবী, পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত, নাতি সুকান্ত বাবু, আবদুর রব সেরনিয়াবাতের বড় ভাইয়ের ছেলে সজীব সেরনিয়াবাত এবং এক আত্মীয় বেন্টু খান।

ঘাতকরা সেদিন যাদের নির্মম ভাবে হত্যা করেছিল

খুনিদের বাঁচানোর জন্য ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর স্ব-ঘোষিত রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমেদ (যিনি বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রীসভার বানিজ্য মন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন) ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করেন। সেদিন ছিল শুক্রবার। ‘দি বাংলাদেশ গেজেট, পাবলিশড বাই অথরিটি’ লেখা অধ্যাদেশটিতে খন্দকার মোশতাকের স্বাক্ষর আছে। মোশতাকের স্বাক্ষরের পর আধ্যাদেশে তত্কালীন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব এম এইচ রহমানের স্বাক্ষর আছে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হওয়ার পর মোশতাক নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা দেন।

অধ্যাদেশটিতে দুটি ভাগ আছে। প্রথম অংশে বলা হয়েছে, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোরে বলবত্ আইনের পরিপন্থী যা কিছুই ঘটুক না কেন, এ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টসহ কোনো আদালতে মামলা, অভিযোগ দায়ের বা কোনো আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না।

দ্বিতীয় অংশে বলা আছে, রাষ্ট্রপতি উল্লিখিত ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে যাদের প্রত্যয়ন করবেন তাদের দায়মুক্তি দেওয়া হলো। অর্থাত্ তাদের বিরুদ্ধে কোনো আদালতে মামলা, অভিযোগ দায়ের বা কোনো আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না।

এরপর ক্ষমতায় আসে আর এক সামরিক শাসক মেজর জিয়া। তিনি ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি সামরিক আইনের অধীনে দেশে দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচনে দুই-তৃতীয়াংশ আসন পেয়ে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। এরপর তিনি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৭৯ সালের ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ সহ চার বছরে সামরিক আইনের আওতায় সব অধ্যাদেশ, ঘোষণাকে সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে আইনি বৈধতা দেন।

ইনডেমনিটি অধ্যাদেশে যা বলা হয়েছিল, “১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট হইতে ১৯৭৯ সালের ৯ এপ্রিল তারিখের (উভয় দিনসহ) মধ্যে প্রণীত সকল ফরমান, ফরমান আদেশ, সামরিক আইন প্রবিধান, সামরিক আইন আদেশ, ও অন্যান্য আইন, এবং উক্ত মেয়াদের মধ্যে অনুরূপ কোনো ফরমান দ্বারা এই সংবিধানের যে সকল সংশোধন, সংযোজন, পরিবর্তন, প্রতিস্থাপন ও বিলোপসাধন করা হইয়াছে তাহা, এবং অনুরূপ কোনো ফরমান, সামরিক আইন প্রবিধান, সামরিক আইন আদেশ বা অন্য কোনো আইন হইতে আহরিত বা আহরিত বলিয়া বিবেচিত ক্ষমতাবলে, অথবা অনুরূপ কোনো ক্ষমতা প্রয়োগ করিতে গিয়া বা অনুরূপ বিবেচনায় কোনো আদালত, ট্রাইব্যুনাল বা কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রণীত কোনো আদেশ কিংবা প্রদত্ত কোনো দণ্ডাদেশ কার্যকর বা পালন করিবার জন্য উক্ত মেয়াদের মধ্যে কোনো ব্যক্তি বা কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রণীত আদেশ, কৃত কাজকর্ম, গৃহীত ব্যবস্থা বা কার্যধারাসমূহ, অথবা প্রণীত, কৃত, বা গৃহীত বলিয়া বিবেচিত আদেশ, কাজকর্ম, ব্যবস্থা বা কার্যধারাসমূহ এতদ্বারা অনুমোদিত ও সমর্থিত হইল এবং ঐ সকল আদেশ, কাজকর্ম, ব্যবস্থা বা কার্যধারাসমূহ বৈধভাবে প্রণীত, কৃত বা গৃহীত হইয়াছে বলিয়া ঘোষিত হইল, এবং তত্সম্পর্কে কোনো আদালত, ট্রাইব্যুনাল বা কর্তৃপক্ষের নিকট কোনো কারণেই কোনো প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না।”

এভাবেই মোস্তাক-জিয়া-এরশাদ-খালেদা গং বঙ্গবন্ধুর খুনীদেরকে রক্ষা করার ষোলকলা পূর্ন করেন। শুধু তাদের রক্ষা করেই ক্ষান্ত হয় নাই। তারা ঐ খুনী চক্রদের অনেক ভালভবে পুরস্কৃত করেছিল। দিয়েছিল বিভিন্ন দেশের দূতাবাসে গুরুত্ব পদ ও কুটনীতিক পদ।

১৯৭৬ সালের ৮ জুন ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকার দায়ে অভিযুক্ত হত্যাকারী গোষ্ঠীর ১২ জনকে বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দেওয়া হয়েছিল। যেমন:
১. লে. কর্নেল শরিফুল হককে (ডালিম) চীনে প্রথম সচিব,
২. লে. কর্নেল আজিজ পাশাকে আর্জেন্টিনায় প্রথম সচিব,
৩. মেজর এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদকে আলজেরিয়ায় প্রথম সচিব,
৪. মেজর বজলুল হুদাকে পাকিস্তানে দ্বিতীয় সচিব,
৫. মেজর শাহরিয়ার রশিদকে ইন্দোনেশিয়ায় দ্বিতীয় সচিব,
৬. মেজর রাশেদ চৌধুরীকে সৌদি আরবে দ্বিতীয় সচিব,
৭. মেজর নূর চৌধুরীকে ইরানে দ্বিতীয় সচিব,
৮. মেজর শরিফুল হোসেনকে কুয়েতে দ্বিতীয় সচিব,
৯. কর্নেল কিসমত হাশেমকে আবুধাবিতে তৃতীয় সচিব,
১০. লে. খায়রুজ্জামানকে মিসরে তৃতীয় সচিব,
১১. লে. নাজমুল হোসেনকে কানাডায় তৃতীয় সচিব,
১২. লে. আবদুল মাজেদকে সেনেগালে তৃতীয় সচিব হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

এর পর দীর্ঘ ২১ বছর সংগ্রামের মাধ্যমে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারপ্রক্রিয়া শুরু করার আইনি বাধা অপসারণের প্রক্রিয়া শুরু হয়। সংবিধান বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ (রহিতকরণ) বিল, ১৯৯৬ সালে সপ্তম সংসদে উত্থাপন করা হয়। ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর আইনটি সংসদে পাস হয়। ১৪ নভেম্বর রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের পর এটি পরিপূর্ণভাবে আইনে পরিণত হয়। ফলে মোশতাকের জারি করা এবং জিয়াউর রহমানের সময় বৈধতা পাওয়া ইনডেমনিটি অধ্যাদেশটি বিলুপ্ত বলে গণ্য হয়। এরপরই শুরু বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার কাজ।
এক নজরে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা : এক নজরে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলাঃ
ঘটনার দিন : শুক্রবার, তারিখ : ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট।
সময় : ভোর ৪:৩০ থেকে ৫:০০টা।
ঘটনাস্থল :
ধানমন্ডি ৩২ নং রোডের বঙ্গবন্ধুর বাসভবন, ধানমন্ডির ১৩ নং রোডের শেখ ফজলুল হক মনি’র বাসভবন ও হেয়ার রোডের আব্দুর রব সেরনিয়াবাতের বাসভবন।
মামলা দায়ের : ২ অক্টোবর ১৯৯৬ইং। থানা: ধানমন্ডি ডিএমপি।
মামলার বাদী : বঙ্গবন্ধুর রেসিডেন্ট পিএ- আফম মুহিতুল ইসলাম।
তদন্তকারী সংস্থা : সিআইডি।
মোট আসামি : ১৯ জন, পলাতক : ১৪ জন।
তদন্তের সময়কাল : ১০৮ দিন।
জিজ্ঞাসাবাদ : ৪৫০ জন।
আদালতে সাক্ষী প্রদান : ৬১ জন।
সাক্ষীদের মধ্যে : সমারিক বাহিনীর সদস্য ৩৯ জন, বেসামরিক ব্যক্তি ২২ জন।
মোট শুনানি : ১৪৯ দিন।
সাক্ষ গ্রহণ ও জেরা : ১২১ দিন।
আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক : ২৮ দিন।
অভিযোগ গঠন : ৬ এপ্রিল।
শুনানি সমাপ্তি : ১৩ অক্টোবর ৯৮।
রায় ঘোষণা : ৮ নভেম্বর ৯৮।

হাইকোর্ট অংশ
১১ নভেম্বর ৯৮ : মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকরের জন্য হাইকোর্টে নথি প্রেরণ।

১৫ নভেম্বর ৯৮ : মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আটক আসামি ফারুক রহমান, শাহরিয়ার, মুহিউদ্দিন ও বজলুল হুদার পক্ষে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের দেয়া রায়কে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে আপিল আবেদন জানানো হয়।
২৯ মে, ১৯৯৯ : বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার যাবতীয় নথিপত্র প্রিন্ট করে ১ হাজার ৯৬ পৃষ্ঠার পেপার বুক প্রস্তত করা হয়।

১৬ জানুয়ারি ২০০০ : বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার ডেথ রেফারেন্সের শুনানির জন্য সরকার পক্ষের বিশেষ কৌঁসুলি বিচারপতি কাজী এবাদুল হক ও বিচারপতি শিকদার মকবুল হক সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন জানান। আদালত ডেথ রেফারেন্সের শুনানির জন্য নির্ধারিত বেঞ্চে আবেদন জানানোর পরামর্শ দেন।

৬ ফেব্রম্নয়ারি ২০০০ : বিচারপতি এমএম রম্নহুল আমীন ও বিচারপতি আব্দুল মতিন সমন্বয়ে হাইকোর্ট বেঞ্চে মামলার শুনানি গ্রহণের জন্য আবেদন জানানো হয়। আদালত ক্রমানুসারে শুনানির জন্য অপেক্ষা করতে বলে। একই দিনে বিচারপতি মোঃ রম্নহুল আমিন ও বিচারপতি এসকে সিনহা সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে আবেদন জানানো হয়। আদালত শুনানি গ্রহণে অস্বীকৃতি জানায়।

৭ ফেব্রম্নয়ারি, ২০০০ : বিচারপতি মোঃ নূরম্নল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ মোমতাজ উদ্দিন সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে শুনানির জন্য আবেদন জানায়। আদালত জানায়, এ বিষয়ে তাদের শুনানি গ্রহণ সম্ভব নয়।

১৩ ফেব্রম্নয়ারি, ২০০০ : বিচারপতি মোঃ নূরম্নল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ মোমতাজ উদ্দিন সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে মামলার শুনানির জন্য সরকার পক্ষ আবারও আবেদন। আদালত তাদের নির্ধারিত কাজে ব্যসত্মতার কারণ দেখিয়ে পরে আসার পরামর্শ দেয়।

৩০ মার্চ, ২০০০ : বিচারপতি আমিরম্নল কবীর চৌধুরী ও বিচারপতি মোঃ আব্দুল আজিজ সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে মামলা শুনানির জন্য তালিকাভুক্ত। এ্যাটর্নি জেনারেল মাহমুদুল ইসলাম মামলায় পলাতক ১১ আসামীর জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে আইনজীবী নিয়োগের আদেশ প্রদানের আবেদন। আসামী বজলুল হুদার পক্ষ অতিরিক্ত পেপার বুক প্রস্তুতের জন্য আবেদন জানানো হয়।

২ এপ্রিল, ২০০০ : পলাতক ১১ আসামীর জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে আইনজীবী নিয়োগের নির্দেশ। প্রত্যেককে পেপার বুক সরবরাহ করতে নির্দেশ। বজলুল হুদার পক্ষ পেপার বুক সংক্রান্ত আবেদনের নিষ্পত্তির জন্য তারিখ নির্ধারণ।

৬ এপ্রিল, ২০০০ : আসামি বজলূল হুদার আবেদনের প্রেক্ষিতে সরকার পক্ষের জবাব দাখিল। আসামি পক্ষ এ বিষয়ে শুনানির জন্য সময় নেয়।

১০ এপ্রিল, ২০০০ : বিচারপতি আমিরম্নল কবীর চৌধুরী ও বিচারপতি এমএ আজিজ সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার শুনানি গ্রহণ বিব্রতবোধ করছেন জানিয়ে মামলাটির পরবর্তী ব্যবস্থা নিতে প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়ে দেন।

২০ এপ্রিল ২০০০ : প্রধান বিচারপতির নির্দেশে মামলাটি বিচারপতি এমএম রম্নহুল আমিন ও বিচারপতি মোঃ আব্দুল মতিনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে বিচার নিষ্পত্তি করতে নির্ধারণ করা হয়।
২৪ এপ্রিল, ২০০০ : বিচারপতি এমএম রম্নহুল আমিন ও বিচারপতি মোঃ আব্দুল মতিনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে মামলার শুনানির গ্রহনের বিব্রতবোধ করছেন জানিয়ে মামলাটি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়ে দেন। বিকাল চারটায় প্রধান বিচারপতি সুপ্রিমকোর্টের উভয় বিভাগের বিচারপতিদের নিয়ে বৈঠক। হাইকোর্ট বেঞ্চ পুনর্গঠন। বিচারপতি মোঃ রম্নহুল আমিন ও বিচারপতি এবিএম খায়রম্নল হক সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চকে ডেথ রেফারেন্সের শুনানি গ্রহনের জন্য নির্ধারণ করা হয়। এই বেঞ্চকে দায়িত্ব দেয়া হয় বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার ডেথ রেফারেন্সের শুনানি গ্রহণের জন্য।
২৫ এপ্রিল, ২০০০ : বিচারপতি মোঃ রম্নহুল আমিন ও বিচারপতি এবিএম খায়রম্নল হক সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আপিল আবেদনের শুনানির জন্য দৈনিক কার্যতালিকায় ১২ নং ক্রমিকভুক্ত করা হয়।

৩ মে, ২০০০ : মামলার পেপার বুক পুনর্গঠন সংক্রান্ত আসামি বজলুল হুদার আবেদন নাকচ। পলাতক আসামিদের জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে আইনজীবী নিয়োগ করতে সলিসিটরকে নির্দেশ।

৯ মে, ২০০০ : বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার ডেথ রেফারেন্সের শুনানির পূর্বে নতুন মামলা তালিকাভুক্ত নিয়ে নির্ধারিত বেঞ্চের বিচারপতিদের মতানৈক্য।

১১ মে, ২০০০ : দুই বিচারপতির মতানৈক্যের নিষ্পত্তি করেছেন প্রধান বিচারপতি।

১৫ মে , ২০০০ : পলাতক ১১ আসামীর প্রত্যেকের জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে আইনজীবী নিয়োগের তালিকা আদালতের অনুমোদন।

২৫ জুন, ২০০০: মামলার শুনানি স্থগিত রাখার জন্য আবেদন। হাইকোর্ট সে আবেদন খারিজ করে দেয়।
২৭ জুন, ২০০০ : বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আপিল আবেদন হাইকোর্টের দৈনিক কার্যতালিকার ক্রমানুসারে শুনানি গ্রহণ শুরু।

২৮ জুন, ২০০০ : শুনানির শুরুতেই আসামি পক্ষ লিখিত আপত্তি দাখিল করে। সরকার পক্ষ বিশেষ কৌঁসুলি নিয়োগের বৈধতার প্রশ্ন করে আপিল শুনানির জন্য প্রস্তুতকৃত পেপার বুক যথাযথ হয়নি দাবি করা হয়। এ বিষয়ে শুনানির জন্য তারিখ ধার্য করে। নিয়ম অনুযায়ী আপিলের শুনানি প্রথম গ্রহণ করা হয়। সে হিসাবে আসামি পক্ষ থেকে মামলার পেপার বুক পাঠ করে আদালতে শুনানি শুরু হয়।

৩০ জুন, ২০০০ : সরকার পক্ষের প্রধান কৌঁসুলি সিরাজুল হকের নিয়োগের বৈধতা চ্যালেঞ্জ। মামলার পেপার বুক যথাযথ হয়নি। অতিরিক্ত বা পূর্ণ পেপার বুক প্রস্তুতের জন্য আসামি পক্ষের পৃথক তিনটি আবেদন।

৪ জুলাই, ২০০০ মোঃ সিরাজুল হকের নিয়োগ বৈধ ঘোষণা। আসামি পক্ষের আবেদনের একাংশ গৃহীত অনুযায়ী সম্পূরক পেপার বুক প্রস্তুতের নির্দেশ।

৯ জুলাই, ২০০০ : তাহের ঠাকুরসহ ৪ জনের খালাসের বিরুদ্ধে সরকার পক্ষ আপিল করছে কি-না জানানোর জন্য ডেপুটি এটর্নি জেনারেল সামসুদ্দিন চৌধুরীকে নির্দেশ।

১০ জুলাই, ২০০০ : আসামি ফারম্নক ও শাহরিয়ারের স্বীকারোক্তি জবানবন্দি প্রত্যাহারের আবেদনটি সম্পূরক পেপার বুক হিসাবে অন্তুর্ভুক্ত।

১১ জুলাই, ২০০০ : পেপার বুক পুনর্গঠন সংক্রামত্ম লিভ আপিল শুনানি স্থগিত রাখার জন্য বজলুল হুদার কৌঁসুলির আবেদন। আদালত তিন সপ্তাহের জন্য স্থগিত ঘোষণা।

১৬ জুলাই : ২০০০ : পেপার বুক থেকে পাঠ করে শুনানি শেষ হয়।

১৮ জুলাই , ২০০০ : আপিল শুনানিতে আসামি পক্ষের কৌঁসুলিদের সওয়াল জবাব শুরু। ২৫টি কার্যদিবসে তাদের বক্তব্য প্রদান সম্পন্ন করে।

১৭ আগস্ট ২০০০ : হাইকোর্টের দুই বিচারপতি খাস কামরায় ফারম্নক, রশিদের দেয়া সাক্ষাতকালের ভিডিও ক্যাসেটটি দেখেন।
২৪ আগস্ট, ২০০০ থেকে ১৪ অক্টোবর, ২০০০ পর্যমত্ম শরৎকালীন ৫১ দিনের ছুটিতে শুনানি মুলতবি।
২২ অক্টোবর, ২০০০ : সরকার পক্ষের প্রধান কৌঁসুলি সিরাজুল হক সওয়াল জবাবের শুনানিতে অংশ নেন।
২৯ অক্টোবর, ২০০০ : সিরাজুল হক অসুস্থ হয়ে পড়ায় শুনানি এক সপ্তাহের জন্য স্থগিত।
৫ নভেম্বর ২০০০ : সিরাজুল হক পুনরায় শুনানিতে অংশ নেন। ১৪ দিনব্যাপী বক্তব্য পেশ করেন। মোট ২০ দিন সরকার পক্ষ থেকে সওয়াল জবাবে শুনানি করা হয়।
২৯ নভেম্বর : ২০০০ : বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আপিল আবেদনের শুনানি হাইকোর্ট ৬৩টি কার্যদিবসে শেষ করে। এদিন আদালত সিএভি রায়ের জন্য প্রতীক্ষিত বলে আদালত মুলতবি ঘোষণা করে। #

১৪ ডিসেম্বর, ২০০০ : হাইকোর্ট থেকে দ্বিমতে বিভক্ত রায় ঘোষণা। ১৪ জানুয়ারি, ২০০১ : ডেথ রেফারেন্স বেঞ্চের বিভক্ত রায় নিষ্পত্তির ব্যবস্থা করতে প্রধান বিচারপতির কাছে প্রেরণ। ১৫ জানুয়ারি, ২০০১ : বিচারপতি ফজলুল করিমকে তৃতীয় বিচারপতি নিয়োগ করে হাইকোর্ট পর্যায়ে ডেথ রেফারেন্স ও আপিল নিষ্পত্তির দায়িত্ব অর্পণ।

১৭ জানুয়ারি, ২০০১ : তৃতীয় বিচারপতির আদালত প্রথম বসে এবং তিনি শুধু দ্বিমত থাকা আসামিদের বিষয়ে শুনানি করবেন বলে সিদ্ধান্ত দেন। ২৪ জানুয়ারি, ২০০১ : লে. কর্নেল মহিউদ্দিনের (আর্টিলারি- স্ত্রী শাহিদা মহিউদ্দিন ডিমান্ড অব জাস্টিস নোটিশ পাঠান। ১২ ফেব্রম্নয়ারি ২০০১ : তৃতীয় বিচারপতির আদালতের শুনানি শুরম্ন।
১৯ এপ্রিল ২০০১ : শুনানি শেষ। ৩০ এপ্রিল ২০০১ : তৃতীয় বিচারপতির সিদ্ধামত্ম ঘোষণার মধ্য দিয়ে হাইকোর্ট পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচার প্রক্রিয়ার সমাপ্তি। তৃতীয় বিচারপতি ১২ আসামির মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রেখে তিনজনকে খালাস দেন। চূড়ামত্ম রায়ে মৃত্যুদ- বহাল থাকা ১২ আসামির মধ্যে পরে ওই বছরই কারাবন্দি চার আসামি আপিল বিভাগে লীভ টু আপিল করে।

২০০২-২০০৬ সাল : সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি গোলাম রাববানী, বিচারপতি জেআর মোদাচ্ছির হোসেন, বিচারপতি কেএম হাসান ও বিচারপতি আবু সাঈদ আপিলের শুনানিতে বিব্রতবোধ করেন। এক পর্যায়ে মামলাটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়।

১৩ মার্চ ২০০৭ : মৃত্যুদ-প্রাপ্ত অপর আসামি ল্যান্সার একেএম মহিউদ্দিন আহমেদ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গ্রেফতার। ১৮ জুন ২০০৭ : মৃত্যুদ-প্রাপ্ত অপর আসামি ল্যান্সার একেএম মহিউদ্দিন আহমেদকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।
২৪ জুন ২০০৭ : ল্যান্সার মহিউদ্দিনের জেল আপিল।

২ আগস্ট ২০০৭ : হাইকোর্টের রায়ের বিরম্নদ্ধে আসামিদের দায়ের করা লিভ টু আপিলের ওপর শুনানির জন্য বেঞ্চ গঠন।
৭ আগস্ট ২০০৭ : বিচারপতি তাফাজ্জাল ইসলাম, বিচারপতি জয়নাল আবেদীন ও বিচারপতি মোঃ হাসান আমিনের আপিল বিভাগের বেঞ্চ বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার লীভ টু আপিলের ওপর শুনানির জন্য গঠন করা হয়। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০০৭ : আপিল বিভাগ ২৬ কার্যদিবস শুনানি গ্রহণ করে মৃত্যুদ-প্রাপ্ত পাঁচ আসামির আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ (লীভ মঞ্জুর) করে।

৩০ অক্টোবর ২০০৭ : পেপারবুক তৈরি করে জমা দিতে আসামি পক্ষর শেষ সময়। তারা পেপারবুক ও যুক্তির সংক্ষিপ্ত সার আদালতে জমা দেয়। ২৪ আগস্ট ২০০৯ : আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি মোহাম্মদ মোজাম্মেল হোসেন বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আপিল শুনানির জন্য ৫ অক্টোবর তারিখ ধার্য করে দেন।

৪ অক্টোবর ২০০৯ : মামলার চূড়ামত্ম নিষ্পত্তিতে শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পাঁচ বিবিচারপতিকে নিয়ে একটি বেঞ্চ গঠন। বিচারপতি মোঃ তাফাজ্জাল ইসলাম, বিচারপতি মোঃ আব্দুল আজিজ, বিচারপতি বিজন কুমার দাস, বিচারপতি মোঃ মোজাম্মেল হোসনে ও বিচারপতি সুকেন্দ্র কুমার সিনহা।

৫ অক্টোবর ২০০৯ : সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার শুনানি শুরম্ন। ১২ নভেম্বর ২০০৯ : সুপ্রিম কোর্ট আপিল বিভাগে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার শুনানি ২৯ কার্যদিবসে শেষ হলো। ১৯ নভেম্বর ২০০৯ : বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার চূড়ামত্ম রায়ের তারিখ ঘোষণা ও তৃতীয় বেঞ্চের রায় বহাল পাঁচ আসামির আপিল খারিজ। ২৪ জানুয়ারি রিভিউ পিটিশনের ওপর শুনানি শুরম্ন। ২৭ তারিখ পিটিশনের খারিজ করে দিয়ে রায় বহাল। ওই দিনই অর্থাৎ ২৭ জানুয়ারি রাত ১২.১ মিনিটে ফারম্নক ও হুদার ফাঁসি কার্যকরের মধ্য দিয়ে অপর ৩ আসামিরও ফাঁসি কার্যকর করা হয়। শেষ হয় একটি প্রতিষ্ঠিত কালো অধ্যায়ের। [তথ্যসূত্র]

উপসংহার: যাদের এখনও ফাঁসি কার্যকর হয়নাই তাদের ধরে এনে অবিলম্বে রায় কার্যকর এই সরকারকেই করতে হবে। তা না হলে এ নিয়ে আর একটি ইনডিমিনিটি হতে পারে, তাতে কোন সন্দেহ নেই। আমরা ওদের ফাঁসির বাস্তবায়ন চাই। সাথে সাথে এই শোককে শক্তিতে রুপান্তরিত করে ঐ অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করার শপথ নিতে হবে আজই।

১৫ আগষ্টের প্রেতাত্মা ও তাদের দোসররা আজও সক্রিয়। আজ ২০১১ সালের ১৫ আগষ্ট। জাতীর জনকের কন্যা শেখ হাসিনা বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রী। তিনি ও তার পুরো পরিবার এখনও সেই ১৫ আগষ্টের প্রেতাত্মা ও দোসরদের কাছ থেকে নিয়মিত হত্যার হুমকি পাচ্ছেন। ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা করে ৭৫ এর ১৫ আগষ্টের নায়কদের উত্তরসুরিরা তাঁকে হত্যার চেষ্টা করে। এভাবে কয়েকবার তারা বোমা হামলা করে শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা চালায়। আজ তারা সংবিধান সংশোধন করা নিয়ে বক্তব্য দিতে গিয়ে আর একটি ১৫ আগষ্টেরও হুমকি দিয়েছে। তাহলে সত্যিই শেখ হাসিনাকে বা তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদেরকেও ঐ ১৫ আগষ্টের মত নির্মম হত্যার পরিকল্পনা করা হচ্ছে ? আমরা কি দেশে আর একটি ১৫ আগষ্ট চাই বা কামনা করি ? জাতির বিবেক কী বলে ?

সুত্র সংগ্রহকারীঃ- আলহাজ্ব শেখ মোঃ ফজলুল হক, সভাপতি বাংলাদেশ অনলাইন বঙ্গবন্ধু পরিষদ লীগ, সাবেক সহসম্পাদক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় ধর্ম বিষয়ক উপ-কমিটি।
০১-০৮-২০২০ইং

ভাল লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর
© All rights reserved 2020 bobplonlinenews
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD